৩০ আষাঢ়, ১৪২৭, মঙ্গলবার

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
Uncategorized
ইসলামী জীবন
ঔষধ ও চিকিৎসা
খাদ্য ও পুষ্টি
জানুন
নারীর স্বাস্থ্য
পুরুষের স্বাস্থ্য
ভিডিও
ভেসজ
যৌন স্বাস্থ্য
রান্না বান্না
লাইফ স্টাইল
শিশুর স্বাস্থ্য
সাতকাহন
স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য
স্বাস্থ্য খবর

করোনা সুরক্ষায় ব্যবহৃত হবে অ্যান্টিভাইরাল পোশাক?

করোনার প্রকোপে কাঁপছে বিশ্ব। এই পরিস্থিতিতে অ্যান্টি-ভাইরাল কাপড়ের পোশাক নিয়ে হাজির হয়েছে ভারতের টেক্সটাইল সংস্থা অরবিন্দ লিমিটেড। সুইজারল্যান্ডের টেক্সটাইল সংস্থা হেইক এবং তাইওয়ানের স্পেশালিটি কেমিক্যাল কোম্পানি জিনটেক্স কর্পোরেশনের সঙ্গে একযোগে ভারতে প্রথমবার হেইক ভাইরোব্লক প্রযুক্তির কাপড় উৎপাদন করবে তারা।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া জামাকাপড়ের উপরে দু’দিন পর্যন্ত সক্রিয় থাকতে পারে। অরবিন্দের দাবি, হেইক ভাইরোব্লক প্রযুক্তিতে তৈরী পোশাক সক্রিয়ভাবে ভাইরাস প্রতিরোধ করতে সক্ষম। এই পোশাকের সংস্পর্শে মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাস-ব্যাকটেরিয়া শেষ হয়ে যাবে। ফলে কাপড়ের মাধ্যমে রোগজীবাণু সংক্রমণের আশঙ্কা অনেকাংশেই কমে যাবে।

অ্যান্টি-ভাইরাল কাপড় বাজারে আনার কথা ঘোষণা করেছেন অরবিন্দ লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর কুলিন লালভাই। এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ‘কোভিডের কারণে বিশ্ব এক নজিরবিহীন সংকটের মধ্যে পড়েছে। এই বিপদের দিনে আমরা আমাদের গ্রাহকদের সুরক্ষিত রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সেই কারণে ভাইরোব্লক প্রযুক্তি ভারতে আনার জন্য হেইকয়ের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। অল্পসময়ের মধ্যেই আমরা সর্বোত্তম মানের ভাইরাস সুরক্ষা-সহ ফ্যাশনেবল কাপড় ভারতীয় বাজারে আনব।’

এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয়ক ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি ঠিকানা: – YouTube.com/HealthDoctorBD

এদিকে, ভারতের বাজারেও হেইক ভাইরোব্লক দিয়ে তৈরী পোশাক বিশেষ জনপ্রিয় হবে বলে আশাবাদী হেইক গ্রুপের সিইও কার্লো সেন্টনজি। সুইস টেক্সটাইল সংস্থা হেইক-এর তৈরী উন্নত অ্যান্টি-ভাইরাল পণ্যগুলির মধ্যে অন্যতম হেইক ভাইরোব্লক। উন্নত সিলভার ও ভ্যাসিক্যাল প্রযুক্তির বিশেষ মেলবন্ধনে তৈরী হেইক ভাইরোব্লক প্রযুক্তি সার্স বা করোনাভাইরাসের উপরেও বিশেষ কার্যকরী বলে সুইস এই সংস্থার দাবি। তাদের মতে, এই প্রযুক্তিতে তৈরি কাপড় ভাইরাল সংক্রমণ ৯৯.৯৯ শতাংশ পর্যন্ত হ্রাস করতে সক্ষম।

সূত্র: কালের কন্ঠ

Comments

comments