১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, সোমবার

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
Uncategorized
ইসলামী জীবন
ঔষধ ও চিকিৎসা
খাদ্য ও পুষ্টি
জানুন
নারীর স্বাস্থ্য
পুরুষের স্বাস্থ্য
ভিডিও
ভেসজ
যৌন স্বাস্থ্য
রান্না বান্না
লাইফ স্টাইল
শিশুর স্বাস্থ্য
সাতকাহন
স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য
স্বাস্থ্য খবর

ব্রেন টিউমারে কী কী সচেতনতা নেবেন? উপসর্গই বা কী?

মাথার যন্ত্রণার সঙ্গে বমি, ভুলে যাওয়া ও আচমকা ব্ল্যাক আউটের মতো উপসর্গ থাকলে সতর্ক হতে হবে।
মাথা থাকলে মাথা ব্যথা হয়। সে আর নতুন কথা কী! কিন্তু মাথার যন্ত্রণার সঙ্গে যদি থাকে বমি, ভুলে যাওয়া ও আচমকা ব্ল্যাক আউটের মতো উপসর্গ— তবে সতর্ক হতে হবে বইকি! অনেক সময় এ সব মস্তিষ্কের টিউমারের উপসর্গ হতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেব অনুযায়ী, মোট ২ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষ প্রতি বছর ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হন। আমাদের দেশে এই সংখ্যাটা বছরে ৪০– ৫০ হাজার । এদের মধ্যে আবার ২০ শতাংশের বয়স ১৪ বছরের কম।

আসলে ‘ব্রেন টিউমার’ শব্দটি কানে এলেই ভয়ে হাত পা ঠান্ডা হয়ে যায়। অথচ উপযুক্ত চিকিৎসার সাহায্য নিয়ে ব্রেন টিউমারের কবল থেকে মুক্তি পাওয়া খুব কঠিন নয়। তবে টিউমার যদি ক্যানসার-যুক্ত হয়, তা হলে তো চিন্তা থেকেই যায়। তবে ঠিক সময়ে রোগ শনাক্ত করে সার্জারির  মাধ্যমে মস্তিষ্কের টিউমার বাদ দিয়ে স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে দেওয়া যায় বলে জানালেন নিউরোসার্জন জি কে প্রুস্টি।

এই বিষয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতেই বিশ্ব জুড়ে পালন করা হচ্ছে ব্রেন টিউমার ডে। আজ থেকে ২০ বছর আগে ‘জার্মান ব্রেন টিউমার অ্যাসোশিয়েশন’ ২০০০ সালে ৮ জুন  বিশ্বের মানুষকে অসুখটি সম্পর্কে সচেতন করতে প্রথম ব্রেন টিউমার দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেন। তার পর থেকে প্রতি বছর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে মস্তিষ্কের টিউমার নিয়ে সচেতন করতে এই দিবস পালন করা হচ্ছে। আমাদের দেশও তাতে অংশ নেয়। জি কে প্রুস্টি জানালেন যে প্রত্যেক দিন ৫০০ জন মানুষের ব্রেন টিউমার নির্ণয় হয়। রোগের শুরুতে সার্জারি করলে রোগীকে সহজেই সুস্থ করে তোলা যায়। তবে ব্রেন টিউমারটি যদি ক্যানসার-যুক্ত হয় সেক্ষেত্রে চিকিৎসা কঠিন হয়ে ওঠে। ব্রেন টিউমার ডে-র অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য এই অসুখ সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে সচেতন করা। যাতে কোনও রকম সন্দেহ হলেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে দ্রুত সেরে উঠতে পারেন।

কী কী লক্ষণ দেখলে সাবধান হতে হবে

• এই অসুখের অন্যতম লক্ষণ মাথার যন্ত্রণা। তবে টিউমার হলে মাথা ব্যথার ধরণটা  অন্য রকম হয়। এ ক্ষেত্রে সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর তীব্র মাথার যন্ত্রণা করে।

• জ্বর বা অন্য কোনও কারণ ছাড়া হঠাৎ হঠাৎ কাঁপুনি শুরু হতে পারে। কিছু ক্ষণ পর আপনা থেকেই কমে যায়।  হজমের সমস্যা না থাকলেও হাঠাৎ বমি পায়।

• খুব সাধারণ ও সাম্প্রতিক ঘটনার কথা বেমালুম ভুল হয়ে যায়। কিছুতেই মনে পড়ে না।

• সারা দিন ঘুম ঘুম ভাব থাকে, ঘুম পায়। কোনও কাজ করতে ইচ্ছে করে না।

• মস্তিষ্কের কোন অংশে টিউমার হয়েছে তার উপরেও কিছু কিছু লক্ষণ নির্ভর করে। যেমন সেরিব্রামের টেম্পোরাল লোবে টিউমার হলে দেখতে অসুবিধে হয়।

• হাত পা নাড়াচাড়া করতে সমস্যা ও হাঁটা চলায় ভারসাম্য রক্ষা করার অসুবিধা হতে পারে।

• ভাবনা ও বলার কো-অর্ডিনেশনে অসুবিধে হতে পারে।

• হাত দিয়ে কোনও জিনিস শক্ত করে ধরতে সমস্যা হয়।

• আচার-ব্যবহার বদলে যেতে পারে। চেনা মানুষকেও অচেনা মনে হতে পারে।

• ঢোক গিলতে ও খাবার খেতে অসুবিধা হতে পারে।

• গন্ধের বোধ চলে যায়।

• অনেক সময় টিউমার খুব বড় না হওয়া পর্যন্ত সে রকম কোনও উপসর্গ থাকে না।

ইয়ার ফোন ও মোবাইল টাওয়ার থেকে সাবধান 

এই অসুখের সুনির্দিষ্ট কোনও কারণ সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি। বংশে থাকলে এই রোগের ঝুঁকি থাকে। যাঁদের রেডিয়েশনের মধ্যে থাকতে হয় তাঁদের ব্রেন টিউমারের ঝুঁকি তুলনামূলক ভাবে বেশি, বললেন জি কে প্রুস্টি। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, মোবাইল টাওয়ার ও ইয়ার ফোনের অতিরিক্ত ব্যবহারে ব্রেন টিউমারের ঝুঁকি বাড়ে। কিছু কিছু রাসায়ানিকের প্রভাবেও ক্যানসার-যুক্ত ব্রেন টিউমার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বিশেষ করে যাঁদের কাজের সূত্রে নিয়মিত রাসায়ানিকের সংস্পর্শে থাকতে হয়, তাঁদের এই রোগের ঝুঁকি অনেক বেশি। এ ছাড়া বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে টিউমারের ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। সম্প্রতি ‘আমেরিকান ব্রেন টিউমার অ্যাসোশিয়েশন’ এক সমীক্ষায় জানিয়েছেন যে যাঁদের চিকেন পক্স হয়েছে তাঁদের ব্রেন টিউমারের ঝুঁকি অনেক কম।

সুস্থ-স্বাভাবিক জীবন যাপন, স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া ও নিয়মিত শরীরচর্চা করে ব্রেন টিউমার ঠেকানো যায়। অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকা উচিত। রেডিয়েশনের ব্যপারেও সতর্ক থাকতে হবে। কোনও সমস্যা হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

সূত্র: আনন্দবাজার

Comments

comments