৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সোমবার

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
Uncategorized
ইসলামী জীবন
ঔষধ ও চিকিৎসা
খাদ্য ও পুষ্টি
জানুন
নারীর স্বাস্থ্য
পুরুষের স্বাস্থ্য
ভিডিও
ভেসজ
যৌন স্বাস্থ্য
রান্না বান্না
লাইফ স্টাইল
শিশুর স্বাস্থ্য
সাতকাহন
স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য
স্বাস্থ্য খবর

পুড়ে গেলে ঘরোয়া উপায়ে চিকিৎসা, জেনে রাখুন প্রয়োজনে কাজে আসবে

পুড়ে গেলে ঘরোয়া – দুর্ঘটনা বলে-কয়ে আসে না। যে কোনো রান্না কিংবা যে কোনোভাবেই আপনি আগুনে দগ্ধ হতে পারেন। ঘরে ফাস্টএইড না থাকলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার আগ পর্যন্ত যে পরিমাণ জ্বালা-পোড়া সহ্য করতে হয়, সেটা অনেক কষ্টের। তাই তাৎক্ষণিক জ্বালা-পোড়া কমানোর জন্য শিখে নিন কিছু ঘরোয়া উপায়।

ঠান্ডা পানি: কোথাও পুড়ে গেলে প্রথমেই সেখানে খুব ভালো করে ঠান্ডা পানি ঢালুন। কিন্তু, মনে রাখবেন কখনোই বরফ ঘষা যাবে না। এতে আরও বেশি ক্ষত হবে।

অ্যালোভেরা: পুড়ে যাওয়া স্থানে অ্যালোভেরার জল লাগান। জ্বালা-পোড়া কমে যাবে এবং ঠাণ্ডা অনুভব হবে। অ্যালোভেরার রস ক্ষত শুকাতে অসাধারণ কাজ করে।

এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয়ক ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি ঠিকানা: – YouTube.com/HealthDoctorBD

দই: দই বা কাচা দুধ ক্ষতের জ্বালা-পোড়া দ্রুত কমিয়ে দেয়। পুড়ে যাওয়া জায়গায় ৩০-৪০ মিনিট দই দিয়ে রাখুন। এতে জ্বালা-পোড়া তো কমবেই, ফোসকা না পড়াতে সাহায্য করবে।

মধু: মধু এন্টিসেপটিক হিসেবে দারুণ কাজ করে। পুড়ে যাওয়ার সাথে সাথে মধু লাগাতে পারলে জ্বালা-পোড়া অনেক কমে যাবে। সঙ্গে পোড়া দাগও হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে।

টুথপেস্ট: টুথপেস্ট শুধু দাঁত মাজার ক্ষেত্রেই ব্যবহার হয় না। পুড়ে যাওয়া স্থানে টুথপেস্ট লাগালে উপকার পাবেন শতভাগ।

কলার খোসা: কলার খোসা জ্বালা-পোড়া কমাতে খুবই উপকারি। পুড়ে যাওয়া স্থানে কলার খোসা এন্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে।

অলিভ অয়েল: অলিভ অয়েলও পোড়া ঘায়ের জন্য বেশ উপকারি। পোড়া ঘা শুকানোর সময় চামড়া টানটান করে, এ সময় অলিভ অয়েল দিলে চামড়া মসৃণ থাকে। কষ্ট কম হয়। চাইলে অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারবেন।

Comments

comments