৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, সোমবার

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Post Type Selectors
Filter by Categories
Uncategorized
ইসলামী জীবন
ঔষধ ও চিকিৎসা
খাদ্য ও পুষ্টি
জানুন
নারীর স্বাস্থ্য
পুরুষের স্বাস্থ্য
ভিডিও
ভেসজ
যৌন স্বাস্থ্য
রান্না বান্না
লাইফ স্টাইল
শিশুর স্বাস্থ্য
সাতকাহন
স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য
স্বাস্থ্য খবর

তুলসী বীজ সেবনের কিছু আকর্ষণীয় উপকারিতা!

করোনার সময়কালে, লোকেরা ঘরোয়া প্রতিকারের গুরুত্ব জানতে পারে। মানুষকে তুলসী ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন আয়ুশ মন্ত্রক। তুলসী একটি আয়ুর্বেদিক ওষুধ, যার রয়েছে প্রচুর উপকারিতা। তবে আপনি কি জানেন যে তুলসীর বীজেও অনেক উপকার রয়েছে ! হ্যাঁ, তুলসীর বীজ সব্জা বীজ, ফালুদা বীজ বা টুকমারিয়া বীজ নামেও পরিচিত, এগুলি পুষ্টির একটি শক্তিধর।

তুলসী যেমন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, তেমনি তুলসীর বীজও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এগুলি দেখতে তিলের মতো, যা কালো রঙের। তুলসীর বীজ খেলে আপনার হজম স্বাস্থ্যকর, রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ থাকে এবং স্ট্রেস থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়। এই বীজের সবচেয়ে বড় সুবিধা হ’ল এটি আপনার ওজন কমাতে খুব সহায়ক।

এই যাদুকরী বীজগুলি আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখবে এবং আপনিও সুস্থ থাকবেন। আসুন জেনে নিই কীভাবে তুলসীর বীজ স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয়ক ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি ঠিকানা: – YouTube.com/HealthDoctorBD

তুলসির যাদুকরী বীজে ওজন নিয়ন্ত্রণ থাকে:

আপনি যদি সমস্ত তহবিল ওজন হ্রাস করার চেষ্টা করে ক্লান্ত হয়ে থাকেন তবে তুলসীর বীজ নিন। তুলসীর বীজে প্রচুর পরিমাণে আলফা-লিনোলেনিক অ্যাসিড থাকে যা ওমেগা -৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের উত্‍স। এই বীজ ক্ষুধা কমাতে সাহায্য করে।

শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণ:

তুলসী বীজ গ্রীষ্মের সেরা খাবার। আপনি যদি বেশি গরম অনুভব করেন, তবে তুলসীর বীজ ব্যবহার করুন, এই বীজগুলি প্রাকৃতিক শীতল হিসাবে কাজ করে, যাতে আপনি কম তাপ অনুভব করেন।

সর্দি এবং ফ্লু থেকে মুক্তি:

তুলসীর বীজ ভাইরাল, সাধারণ সর্দি এবং ফ্লু জাতীয় সমস্যা থেকেও মুক্তি দেয়। তুলসীর বীজের এন্টিসস্পাসোডিক বৈশিষ্ট্য শুকনো কাশি নিরাময়ে সহায়তা করে। শুধু এটিই নয়, তারা পেশীর টানও হ্রাস করে।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূরীকরণের পাশাপাশি হজমে উন্নতি করে:

তুলসীর বীজ শরীরকে ডিটক্স করে এবং মলকে পাশ কাটাতে সহায়তা করে। তুলসীর বীজ গরম জল বা দুধের সাথে খেলে হজমে সমস্যা এবং পেটের ফোলাভাব কাটিয়ে উঠতে পারে।

চিনি নিয়ন্ত্রণ:

তুলসীর বীজগুলি কেবল আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় না, চিনিও এর ব্যবহারের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণে থাকে। তুলসীর বীজে উপস্থিত ডায়েট্রি ফাইবার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। রাতে এক চা চামচ তুলসী বীজ জলে ভিজিয়ে রাখুন। এই বীজ সকালে এক গ্লাস দুধে মিশিয়ে নিন। এটি প্রতিদিন পান করা আপনার সারা দিন ইনসুলিন সংবেদনশীলতা উন্নত করতে পারে।

তুলসী ত্বক এবং চুলের জন্যও উপকারী:

তুলসীর বীজে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে যা ত্বককে স্বাস্থ্যকর করে তোলে। এগুলি নতুন কোষগুলির বৃদ্ধি করে। নারকেল তেলের সাথে মিশ্রিত এই বীজগুলি ব্যবহার করে একজিমা এবং সোরিয়াসিসের মতো ত্বকের রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তুলসীর বীজে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এর ব্যবহারের ফলে চুল পড়ার সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারে। এগুলি মাথার ত্বকে প্রদাহ এবং অক্সিডেটিভ স্ট্রেস প্রতিরোধেও সহায়তা করে।

Comments

comments